শীতের দুপুর, শান্ত নদীর জলে

shhrutisahitya

সহজ পাঠ  //  অমৃতাভ দে

শীতের বাতাস টোকা দেয় দরজায়
শিশির ডাকছে উঠে পড়ো ছেলেবেলা ।
খেজুরের ভাঁড়ে টুপটুপ ঝরে রস
বাড়ির উঠোনে মেঘ-রোদ্দুর খেলা ।

শীত-রোদ্দুর গায়ে মেখে নিয়ে ছুট —
টিনের বাক্সে নকসিকাঁথাটি রাখা ।
জড়িয়ে নিলাম হিমেল হাওয়ার গানে
রঙিন ফুলের পরাগ রেণুতে মাখা ।

শীতের দুপুর, শান্ত নদীর জলে
পানকৌরিটি লুকোচুরি খেলে যেন — ।
সাদা মেঘ বলে, পালিয়ে যাচ্ছি দূরে 
মিছিমিছি তুমি আমায় খুঁজছো কেন ?

ওই দ্যাখো দূরে ওঞ্জনা পাড়ে গ্রাম 
নাগরদোলায় সেজেছে সবুজ মাঠ ।
কুমোর পাড়ার গরুর গাড়িটি আজো
শীত কুয়াশায় আমার সহজপাঠ  ।.

.

.

ভালবাসাই শেষশব্দ //  ২৬  //  মাধব মন্ডল

ভালবাসলে শিশির পড়ে চুলে, মাকড়সার জালেও। ভরা খালে কই এর ফুটকাটা, ভালই খায় খুকু তার ঝোল।ভালবাসে বাঁশপাতা তোর চোখের মায়া হাসি, আমি কোন হরিদাস পাল!

ক্যানসার জেনেও তামাক ধরেছি ঠোঁটে,ঠাস ঠাস গিলেছিলি মার চোখ-জল, রোজ একা একা বুক খুলে দেখি তোর ফোঁপানো, তুই তো ছেড়েছিস আহ্লাদ সব, আমি তো গোলাপ দেবই।

আমি এঁটুলি, জোঁক, লোকের কথায় কান দিলি না, ঝড়ের মুখে তোর সুগন্ধা চুল ওড়ালি, হেসে খুন সব বিষাক্ত বিষয়ী, তোকে ভূতে খেল, আমি আর কি করব বল, খোলা শরীরে তোর সুড়সুড়ি আঁকি।

.

.

.

মিলান টমাসের ‘ইন দ্য গার্ডেন’গল্প অবলম্বনে “বাগানের মধ্যে”(৭০৫৭ নম্বর) // সত্যেন্দ্রনাথ পাইন

বাগানে খেলা করছে ছেলেটা

   সূর্যাস্তের সবচেয়ে লম্বা ছায়া ঘণ্টা

      ভেসে উঠলো চোখের সামনে

শোনা গেল সাবধান বানী—

   যাবার সময় আগত

     কুৎসিত রাতের ভাড়াটেরা

ততক্ষণে লম্বা লম্বা পা ফেলে

    ধেয়ে আসছে তার দিকে

   যেন ছেঁড়া কাপড়ের টুকরোর মতো শেষ আলো

     বিছিয়ে একদৌড়ে ছুটে আসছে

         বাগানের মধ্যিখানে…..

চোখিচোখি হল ছায়া

  আর প্রচ্ছায়ার মধ্যে

     হাত বাড়াল দু’জনে

একে অপরের দিকে

    যেন প্রাচীন বন্ধুত্ব

নিবিড় হয়ে ধরা দিল তাদের মধ্যে

      অনন্তকালের বৃত্তে

মৃতপ্রায় বালক চিৎকার শুরু করল,

   হাঁপাতে হাঁপাতে ছুটল প্রাণভয়ে

       পিছনে সেই ছায়া 

     এলোমেলো চুল উড়ছে বাতাসে

       মৃদু কান্নায় উত্তাল ঝঞ্ঝা সম সেই বালক

         ইথার ও মায়ার ছোঁয়া লাগল

জীবন যাত্রা শুরু করল সার্থক যাত্রাপথে…..

.

.

.

MRRD

পরিত্যাগে  //  মিজানুর রহমান মিজান

বলতে শরম লাগে

তবু ছাড়ে না

মরে না মরার আগে।।

অন্যের ভাল সহ্য হয় না

গিবত ছাড়া কথা কয় না

দু’জনার চলা দেখতে পারে না

কুপরামর্শ দিয়ে আনতে চায় বাগে।।

সামনে করবে প্রশংসা

পিছনে দেয় বাঁশ, লাগায় দিশা

দু’জনকে বানায় বেদিশা

এ ধান্ধা ছড়ায় দ্রুতবেগে।।

দুষ্ট লোকের মিষ্ট কথা

জ্ঞানীর বাণী নয় বৃথা

বাহির ভাল ভিতর তিতা

মানবরুপী শয়তান এটা বাঁচ পরিত্যাগে।।

.

.

.

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: